আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মার্চ মাসে চকলেটের ব্যবসা শুরু করেই ৩ লাখ টাকার মালিক

একটি কন্যা আর স্বামীকে নিয়ে ছোট পরিবার অনার্স ২য় বর্ষ পড়ুয়া ফাতেমা আক্তারের।ব্যাবসা শুরু করেন মার্চ এর ১৫ তারিখ,২০২০।

এমনিতেই প্রচুর চকলেট খেতে পছন্দ করতেন তিনি। সেই সূত্রে গুগোল ইউটিউব সহ অনেক রেসিপি দেখে চকলেট বানানোর চেষ্টা করে একসময় সফল হলেন। তার বানানো চকলেট ফ্যামিলি মেম্বাররা সবাই খুবই পছন্দ করতেন।একদিন হুট করে একটা ফেইসগ্রুপে  বানানো চকলেটের ছব পোস্ট করেছি্লেন। তখনো বিজনেস করার কোন প্ল্যান মাথায় ছিলনা, ছবি আপলোড দেয়ার এক ঘন্টার মধ্যে ২০০০+ লাইক আর চারশত এর মত কমেন্ট আসলো আর প্রায় ৫০০+ মেসেজ আসলো চকলেট কিনার জন্য। এরপর সেই আপুরা বলল একটা পেইজ ওপেন করতে এবং তারাই নামটা ঠিক করে দিল chocofreak’ নামে।

তখনই আমি একটা পেইজ ওপেন করি। সেদিন থেকে উদ্যোক্তা জীবন শুরু।  কাস্টমাররাই তখন তার ইন্সিপিরেশন ।শুরুর দিকে ওনারা চকলেট নেওয়ার পর  যেমন সুন্দর করে রিভিউ দিতেন,তেমন সুন্দর করেই উৎসাহও দিতেন।এখন পর্যন্ত তারাই ফাতেমার কাজ করার শক্তি। আপাতত শুধু চকলেট নিয়ে কাজ করছেন।

Advertisements

ভবিষ্যতে আরো কিছু এড করার ইচ্ছা আছে । এখন চকলেট বিক্রি শুধু অনলাইনেই হচ্ছে।। শুরুতে মূলধন ছিল মাত্র পাঁচ হাজার টাকা। যদিও ব্যবসার এখনো ৬ মাস ও হয়নি তবে অনেক সাড়া পেয়েছেন। এখন পর্যন্ত  টোটাল সেল ৩ লাখের কিছু বেশি ।তবে ছোট বাচ্চা নিয়ে কাজ করতে একটু কষ্ট হয়।

ফাতেমার পণ্যের কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেমন পণ্যটি হচ্ছে চকলেট, আর চকলেট খায় না এমন মানুষ পাওয়া খুবই দুষ্কর।বাচ্চা হতে বুড়ো সবারই পছন্দের খাবার এটি।।ফাতেমা মনে করেন, বিদেশের চকলেটের থেকে তার বানানো চকলেট হাজার গুনে স্বাস্থ্যসম্মত।পণ্যের বা চকলেটের দাম ১০০ টাকা থেকে শুরু। আমার ফেসবুক পেইজের নাম chocofreak।

এত বেশি অর্ডার আসে যে খাওয়া ঘুম কিছুই ঠিকমতো করতে পারেন না ফাতেমা।দুঃখের সাথে সুখের বিষয় যখন দেখেন তার চকলেট গুলো একদম পারফেক্ট ভাবে হচ্ছে।কোন প্রশিক্ষণ না নিয়েই সফলভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।স্বামীর সাপোর্ট না পেলে  কাজ করা সম্ভব হতো না বলে মনে করেণ তিনি।ফাতেমার চকলেট কাস্টমাররা এতটাই পছন্দ করেন যে সেটা রিটার্ন করে না।

ফাতেমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা,  তার ব্যবসাটা আরও বড় হোক আরও পরিচিতি পাক , বিদেশি পণ্য বাদ দিয়ে সবাই দেশি পণ্যের দিকে ঝুঁকে পড়ুক। ব্যবসা শুরু থেকেই অনেক চ্যালেঞ্জ ফেইস করেছেন এবং ভবিষ্যতে হয়ত আরও বড় চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে।  সেই সব প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে পারবেন বলে আশাবাদ করেন।

নতুন নারী উদ্যোক্তার জন্য ফাতেমার পরামর্শ হচ্ছে “আপনারা যেটাই করছেন অনেক ধৈর্য ধরে চালিয়ে যান, একদিন সফল হবেন।”

     এই বিভাগের আরও খবর দেখুনঃ