আজ ৩০শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গভীর রাতে দরজা-জানালা বন্ধ করে যাত্রীবাহী বাসে কিশোরীকে গণধর্ষণ

ঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী তিশা প্লাস পরিবহনের একটি বাসে এক কিশোরীকে (১৬) আটকে রেখেরাতভর বাসে গণধর্ষণের পর ভোরের দিকে একটি বাসায় নিয়ে আবারও তাকে ধর্ষণ করা হয়।

বাসটির চালক আরিফ হোসেন সোহেল ও হেলপার বাবু শেখকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সুপারভাইজার কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার আটচাইল গ্রামের বাসিন্দা আলমকে (৩২) গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এর আগে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নির্যাতিত কিশোরীকে চিকিৎসা, মেডিকেল পরীক্ষা এবং পরে আদালতে জবানবন্দির শেষে বুধবার রাতে তার মায়ের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ, মামলার বিবরণ ও ভুক্তভোগীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ‘কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সাহেবাবাদ গ্রামের বাসিন্দা ওই কিশোরী (১৬) কিছুদিন আগে চাকরির খোঁজে রাজধানীতে গিয়েছিল। গত সোমবার বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে তিশা প্লাস পরিবহনের কুমিল্লাগামী একটি বাসে ওঠে সে। বাসের চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারকে সে শাসনগাছা বাস স্টেশনে নামিয়ে দেওয়ার জন্য বললে তারা তাকে আশ্বস্ত করে। কিন্তু তিন অভিযুক্ত অন্য সব যাত্রীকে নামিয়ে দেওয়ার পর বাসটিকে কিশোরীর গন্তব্য শাসনগাছায় না নিয়ে জেলা সদরের অদূরে সদর দক্ষিণ থানার পদুয়ার বাজার বিশ্বরোডের আল-শাকিল হোটেলের সামনে নিয়ে যায়।সেখানে মঙ্গলবার ভোর আনুমানিক ৪টার দিকে বাসের দরজা-জানালা বন্ধ করে ভয়ভীতি দেখিয়ে কিশোরীকে গণধর্ষণ করে বাবু শেখ, আরিফ হোসেন সোহেল ও আলম (৩২)।চালক আরিফ হোসেন সোহেল বাস থেকে নেমে চলে গেলে হেলপার বাবু শেখ ও সুপারভাইজার আলম কিশোরীকে বাস থেকে নামিয়ে বাবুর বাসায় নিয়ে আবারও ধর্ষণ করে। সেখান থেকে সকাল ৬টার দিকে অসুস্থ অবস্থায় ভুক্তভোগীকে বের করে দেয় তারা।’

Advertisements

ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ওইদিন রাতেই তিনজনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় গণধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কমল কৃষ্ণ ধর জানান, ‘মামলার পর অভিযান চালিয়ে বাবু শেখ ও আরিফ হোসেন সোহেলকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার আদালতে তুলে তাদের ৭ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। ‘

 

     এই বিভাগের আরও খবর দেখুনঃ