আজ ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কাশ্মীর নিয়ে সৌদি-পাকিস্তান সম্পর্কে নতুন মোড়

মুসলিম বিশ্বে সৌদি আরবের দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র পাকিস্তান। অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামরিক সবদিক দিয়েই তারা একে অপরের পাশে রয়েছে বহুদিন ধরে। কিন্তু হঠাৎই যেন ফাটল ধরেছে দুই দেশের পুরোনো বন্ধুত্বে! সৌদি নেতৃত্বাধীন ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) থেকে বের হয়ে যাওয়া তো বটেই, বরং সমমনাদের নিয়ে আলাদা জোট গড়ার হুমকি দিয়েছে পাকিস্তান। পাল্টা জবাবে পাকিস্তানকে দেয়া ১০০ কোটি ডলারের সুদমুক্ত ঋণ সুবিধা তুলে নিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। কিন্তু কী নিয়ে এত দ্বন্দ্ব? কোন স্বার্থে ভাঙতে বসেছে দুই দেশের মিষ্টি-মধুর সম্পর্ক?

চলতি মাসের শুরুর দিকে ভারতশাসিত কাশ্মীর ইস্যুতে ওআইসির বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তোলে পাকিস্তান এবং দাবি পূরণ না হলে তাদের পাশ কাটিয়ে নতুন জোট গড়ার হুমকি দেয় দেশটি।

গত ৪ আগস্ট পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি টেলিভিশনে এক বক্তব্যে বলেন, ‘আমি ওআইসিকে আবারও শ্রদ্ধার সঙ্গে বলছি, পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের একটি সম্মেলনই আমাদের প্রত্যাশা। আপনারা যদি তা আহ্বান করতে না পারেন তবে আমি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে কাশ্মীরের বিষয়ে আমাদের পাশে দাঁড়াতে এবং নিপীড়িত কাশ্মীরিদের সমর্থন করতে প্রস্তুত ইসলামী দেশগুলোকে নিয়ে বৈঠক ডাকতে বলতে বাধ্য হবো।’

Advertisements

গত বছর আগস্টে ভারতশাসিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর থেকেই প্রতিবেশী দেশটির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সমর্থন জোগাড়ের চেষ্টা করছে পাকিস্তান।

ইসলামাদের এমন প্রকাশ্য হুমকিতে স্পষ্টতই চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে মুসলিম বিশ্বে সৌদি আরবের নেতৃত্ব। ইউনাইটেড স্টেটস ইনস্টিটিউট অব পিস (ইউএসআইপি)-র সিনিয়র ফেলো সিরিল আলমিডা বলেন, ‘এটি অসাধারণ এবং নজিরবিহীন ঘটনা। সৌদি-পাকিস্তান সম্পর্কে এধরনের কিছু আগে কেউ কখনোই দেখেনি।’

পাকিস্তানের দেয়া চ্যালেঞ্জ অবশ্য মুখ বুজে সহ্য করে থাকার পাত্র নয় সৌদি আরব। দ্রুতই তারা পাকিস্তানকে তাদের দেয়া ১০০ কোটি ডলারের সুদমুক্ত ঋণ প্রত্যাহার করে। পাশাপাশি তেলের মূল্য দেরিতে পরিশোধযোগ্য একটি বিশেষ স্কিম নবায়নেও অস্বীকৃতি জানায় রিয়াদ। ফলে অনেকটা বাধ্য হয়ে অথবা ভূরাজনৈতিক কৌশল হিসেবে চীনের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে সৌদি আরবের ঋণ পরিশোধ করে পাকিস্তান।

     এই বিভাগের আরও খবর দেখুনঃ